নতুন জীবনের জন্য যুদ্ধ

0
433

‘আমি যদি ওই ধসের মধ্যে পড়ে মরে যেতাম তাহলেই ভালো হতো; আমি আর ব্যথা সহ্য করতে পারছি না,’ সেই দিনটির জন‌্য রেবেকা এখন প্রতি মুহূর্তে খোদার কাছে বিলাপ করেন। বিশ্বের তৈরি পোশাক শিল্পের ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়াবহ গার্মেন্টস কারখানা দুর্ঘটনার শিকারদের তিনিও একজন, যেটি এপ্রিল ২০১৩-এ ঘটেছিল। হতাহতের খতিয়ানে মৃতের সংখ্যা ছিল ১১৩৩ জন শ্রমিক, পঙ্গুত্ব বরণ করেন আরও ১০০ জনেরও অধিক শ্রমিক। সেই দুর্ঘটনায় ভুক্তভোগীদের জন্য জীবন এখন এক বেদনাদায়ক সংগ্রাম।

পশ্চিমা বিশ্ব সেই খবরের শিরোনামগুলো দ্রুতই ভুলে গিয়েছিল, ওদিকে সস্তা আর কেতাদুরস্ত জামাকাপড় তৈরির জন্য আজীবনের মূল্য চোকাতে হয়েছিল দুর্ঘটনার শিকার শ্রমিকদের। দুর্ঘটনার অব‌্যবহিত পর আমি ভুক্তভোগীদের জীবন অনুসরণ করতে শুরু করি, তাদের জীবন; যাদের হয়তো একদিন আমরা ভুলতে বসব। সেইসব মানুষ যাদের জীবন বিধ্বস্ত হয়ে গেছে, যারা কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে পঙ্গুত্বের জীবন মেনে নিয়েছে, যারা প্রিয়জন হারিয়েছে, সেইসব পরিবার যারা পুনর্বাসন নয় বরং ভিক্ষুকের জীবনে পর্যবসিত হয়ে গেছে। আমি নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করি কেননা আমি তাদের বিশ্বাস অর্জন করতে পেরেছি এবং তারা তাদের জীবনে আমাকে প্রবেশ করতে দিয়েছেন, তাদের গল্পগুলো আমাকে শুনিয়েছেন। আমি প্রতিনিয়তই তাদের কাছ থেকে শিখি,  বিষয়টির আরও গভীরে খতিয়ে দেখার জন্য চালিত হই।

এই শ্রমিকদের অনেকেই রাজধানী শহর ছেড়ে গ্রামে ফিরে গেছেন, যেখান থেকে তারা ‘কেউ একজন’ হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে এই শহরে এসেছিলেন। বিশ্বব্যাপী সচেতনতা বাড়াতে আমি আমার আলোকচিত্রসমূহকে ব্যবহার করতে চাই; ওয়ালমার্ট, নাইকি এবং ডিজনির মতো শক্তিশালী ব্র্যান্ডগুলিকে ন্যায্যমূল্য প্রদানে চাপ প্রয়োগ করতে চাই যাতে করে এই কারখানাগুলোয় শ্রম ও নিরাপত্তার মান বাস্তবায়িত করা যায়- যেনো কারও জীবন ও স্বপ্ন আর কখনও ভেঙে না যায়৷ বর্তমানে, আন্তর্জাতিক কোম্পানিগুলো জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণের বদলে বাংলাদেশ থেকে ব‌্যবসা গুটিয়ে নেওয়ার পাঁয়তারা করছে, বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম পোশাক রপ্তানিকারক শিল্পকে পঙ্গু করে দিচ্ছে।

কোনও একটি আলোকচিত্র তার ভিতরকার গল্পকে এমনভাবে বয়ে নিতে পারে যা অসংখ‌্য প্রবন্ধ, কলাম, সম্পাদকীয় কিংবা সেমিনার করতে পারে না। এই শিল্পকে বাঁচাতে এবং ত্রিশ লক্ষ শ্রমিক যারা এই শিল্পের চালিকা শক্তি তাদের প্রতি শোষণের অবসান ঘটাতে আমি আমার আলোকচিত্রগুলো উৎসর্গ করতে চাই। আসুন, সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে করতে আমরা আরেকটি বিয়োগান্তক দুর্ঘটনার জন্য অপেক্ষা না করি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে